অবশেষে স্বস্তির বৃষ্টি…


bangladesh-rainদীর্ঘ প্রতিক্ষার পর অবশেষে বৃষ্টির দেখা মিলল। আজ শুক্রবার জুম্মার নামাজের পর দেশের বিভিন্ন স্থানে ঝড়ো হাওয়া সহ শিলাবৃষ্টি হয়েছে। বৃষ্টি হয়েছে মৌলভীবাজার, নারায়নগঞ্জ ও ব্রাহ্মনবাড়িয়া জেলায়। তবে বিকেল সাড়ে ৫টার দিকে রাজধানী ঢাকার কিছু কিছু এলাকায় ঝড়ো হাওয়া বয়ে গেলেও বৃষ্টির দেখা মেলেনি।

নারায়নগঞ্জ প্রতিনিধি জানান, বিকেল পৌনে ৫টার দিকে নারায়নগঞ্জে বৃষ্টি শুরু হয়। সঙ্গে ছোট ও মাঝারি আকারের শিলও পড়ে। কিছুক্ষণ বাদে শিলাবৃষ্টি বন্ধ হলেও গুড়ি গুড়ি বৃষ্টিপাত হয় প্রায় ৪০ মিনিট।

অন্যদিকে মৌলভীবাজার প্রতিনিধি জানান, বেলা সাড়ে ৩টার দিকে জেলার বিভিন্নস্থানে ঝড়ো হাওয়াসহ থেমে থেমে বৃষ্টি হয়। বৃষ্টির সঙ্গে ছোট ছোট শিলও পড়ে। বৃষ্টির স্থায়ীত্ব ছিল ৫ থেকে ৬ মিনিট। তবে গ্রামাঞ্চলে ১০-১৫ মিনিট বৃষ্টিপাত হয়েছে।

বৃষ্টিপাত হয়েছে ব্রাক্ষ্মনবাড়িয়ার বিভিন্ন স্থানেও। বিকাল পৌনে ৪টার দিকে শুরু হওয়া বৃষ্টি প্রায় ৪৫ মিনিট স্থায়ী হয়।রাজধানী ঢাকাসহ দেশের সব জেলায় বৈশাখের তীব্র তাপদাহে অতিষ্ঠ মানুষ। ঢাকায় বৃহস্পতিবার ১৯৬০ সালের পর দ্বিতীয় সর্বোচ্চ তাপমাত্র ৪০.০২ ডিগ্রি সেলসিয়াস রেকর্ড করা হয়। এ ছাড়া ওই দিন দেশের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয় যশোরে ৪২.০৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস।

শুক্রবার দেশের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয় চুয়াডাঙ্গায় ৪১.৯ ডিগ্রি সেলসিয়াস। আবহাওয়া অফিস জানায়, রংপুর ও রাজশাহী বিভাগ ছাড়া অন্য এলাকায় বৃষ্টি হওয়ার সম্ভাবনা আছে।

এদিকে আজ জুম্মার নাজামের পর মসজিদে মসজিদে বিশেষ দোয়া করা হয়। তীব্র তাপদাহ থেকে বাঁচতে সৃষ্টিকর্তার করুণা কামনা করেন ধর্মপ্রাণ মুসল্লিরা।

(148)