উপজেলা নির্বাচনে সহিংসতা বিচ্ছিন্ন ঘটনা: সিইসি


cscনির্বাচনকে কেন্দ্র করে বিভিন্ন সহিংসতা ও অনিয়মকে বিচ্ছিন্ন ঘটনা বলে উড়িয়ে দিয়ে প্রধান নির্বাচন কমিশনার মোহাম্মদ কাজী রকিবউদ্দীন আহমদ বলেন, নির্বাচনী সহিংসতার কোনো দায় কমিশনের নয়।বুধবার নির্বাচন কমিশন কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে সাংবাদিকদের সাফ এ কথা জানিয়ে দেন তিনি।

গণতান্ত্রিক চর্চা না থাকায় সহিংসতার পুনরাবৃত্তি ঘটেছে বলেও জানান নির্বাচন কমিশনার।নির্বাচন কর্মকর্তাদের সহায়তায় আগের রাতে ব্যালট পেপারে সিল মারার বিষয়সহ বিভিন্ন সহিংসতা ও অনিয়মের ঘটনাকে উড়িয়ে দিয়ে তিনি বলেন, সব ঘটনাই বিচ্ছিন্ন। সহিংসতা এড়াতে সব ধরনের পদক্ষেপ নিয়েছে কমিশন বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

তবে নির্বাচনী সহিংসতা কমিয়ে আনার জন্য অচিরেই রাজনৈতিক দলগুলোর সঙ্গে আলোচনায় বসবে কমিশন। এসময় ষষ্ঠ ধাপে ১৪টি উপজেলার তফসিল ঘোষণা করা হয়।

প্রায় ৪৩ দিন পর মঙ্গলবার অফিস করেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার। আর বুধবার কমিশন কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে কাজী রকিবউদ্দীন নির্বাচনের শুরুতে নিজের দীর্ঘ ছুটিতে যাওয়াকে যৌক্তিক বলে দাবি করেন।

তিনি বলেন, তার ছুটিতে যাওয়া তার ব্যক্তিগত ব্যাপার।

উপজেলা নির্বাচনের তিনটি ধাপ শেষ হওয়ার পরেই প্রধান নির্বাচন কমিশনার কাজী রকিবউদ্দীন আহমেদ লম্বা ছুটিতে বিদেশ পাড়ি দেন। অন্যদিকে পরবর্তী ধাপগুলোতে সহিংসতার মাত্রা বাড়তে থাকে। কিন্তু নির্বাচন চলাকালীন এই গুরুত্বপূর্ণ সময়ে প্রধান নির্বাচন কমিশনার না থাকায় বিএনপিসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক মহল থেকে প্রশ্ন উঠতে শুরু করে। এমনকি আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকেও বলা হয় যে, নির্বাচনী চাপ সহ্য করতে না পেরে অসুস্থ হয়ে ছুটিতে গেছেন সিইসি।

এদিকে, ১৪টি উপজেলায় ষষ্ঠ ধাপের উপজেলা নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করেন তিনি। তফসিল অনুযায়ী মনোনয়নপত্র দাখিলের শেষ সময় ২৪ এপ্রিল। যাচাই-বাছাই ২৬ এপ্রিল। প্রত্যাহার ৩ মে। ভোটগ্রহণ ১৯ মে। এর আগে ৪৫৯টি আউপজেলায় নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়।

(83)