টেস্ট-ওয়ানডে র‌্যাঙ্কিংয়ের শীর্ষে অস্ট্রেলিয়া


aus২০০৯ সালের আগস্টের পর আবারও আইসিসি টেস্ট র‌্যাঙ্কিংয়ের শীর্ষস্থানে ফিরে এসেছে অস্ট্রেলিয়া।গত অ্যাশেজ সিরিজে ইংল্যান্ডকে হোয়াইটওয়াশ করার পাশাপাশি দক্ষিণ আফ্রিকা সিরিজের সাফল্যেই আবারও টেস্ট র‌্যাঙ্কিংয়ের শ্রেষ্ঠত্ব ফিরে পেয়েছে অসিরা।

ভারতকে হটিয়ে ওয়ানডে র‌্যাঙ্কিংয়ের শীর্ষস্থানেও এখন অস্ট্রেলিয়া। তৃতীয় স্থানে আছে শ্রীলঙ্কা। চতুর্থ ও পঞ্চম স্থানে রয়েছে যথাক্রমে ইংল্যান্ড ও দক্ষিণ আফ্রিকা।জিম্বাবুয়েকে পেছনে ফেলে ওয়ানডে র‌্যাঙ্কিংয়ে নবম স্থানে রয়েছে বাংলাদেশ। অষ্টম স্থানে রয়েছে ওয়েস্ট ইন্ডিজ।

২০১০-১১ মৌসুমের ফল বাদ যাওয়ায় ইংল্যান্ডকে হটিয়ে টেস্ট র‌্যাঙ্কিংয়ে শীর্ষে উঠে আসে প্রোটিয়ারা। অস্ট্রেলিয়া নেমে যায় দ্বিতীয় স্থানে। ২০১২ সালের আগস্টের পর এই প্রথমবারের মতো টেস্ট র‌্যাঙ্কিংয়ে দ্বিতীয় স্থানে নেমে গেছে দক্ষিণ আফ্রিকা।

এ সম্পর্কে অস্ট্রেলিয়ার অধিনায়ক মাইকেল ক্লার্ক বলেছেন, “টেস্ট ও ওয়ানডে ক্রিকেটে বিশ্বের এক নম্বর দল হতে পেরে আমরা সত্যিই দারুণ গর্বিত। এখানে দীর্ঘদিনের কঠোর পরিশ্রম এবং প্রচেষ্টা জড়িত। এখানে মাঠ এবং মাঠের বাইরের সকলের অবদান রয়েছে। সকলের সম্মিলিত প্রচেষ্টাই আজকের এই ফল।”

বিশ্বের অন্যতম সেরা একটি দল তাদের ধারাবাহিকতা ফিরে পেয়েছে উল্লেখ করে তিনি আরও বলেন, “এখন আমাদের লক্ষ্য হলো এই অবস্থান ধরে রাখা। পাকিস্তান এবং ভারতের বিপক্ষে টেস্ট সিরিজ এবং ঘরের মাঠে আইসিসি বিশ্বকাপ এখন আমাদের সামনে বড় চ্যালেঞ্জ।”

ভারত তৃতীয় স্থান থেকে নেমে গেছে পঞ্চম স্থানে। তৃতীয় ও চতুর্থ স্থানে রয়েছে যথাক্রমে ইংল্যান্ড ও পাকিস্তান। বাংলাদেশের অবস্থান যথারীতি দশে।

আইসিসি র‌্যাঙ্কিং প্রথা চালু হওয়ার পর ২০০৩-০৯ সাল পর্যন্ত শীর্ষস্থানে ছিল অস্ট্রেলিয়া। মাঝে অল্প কিছুদিনের জন্য এই শ্রেষ্ঠত্ব পায় দক্ষিণ আফ্রিকা। এছাড়া ২০০৯-১১ ও ২০১১-১২ মৌসুমে শীর্ষস্থানে ছিল যথাক্রমে ভারত ও ইংল্যান্ড। সূত্র: এএফপি

(163)