দক্ষিণ সুদানে গৃহযুদ্ধ: প্রথমবারের মতো বৈঠকে বসছেন কির ও মাচার


530eb7682c9856234e778095c61f6fb1_XL

দক্ষিণ সুদানের গৃহযুদ্ধের অবসান ঘটানোর জন্য প্রথমবারের মতো মুখোমুখি আলোচনায় বসতে যাচ্ছেন প্রেসিডেন্ট সালভা কির ও বিদ্রোহী নেতা রিয়েক মাচার। আজ (শুক্রবার) ইথিওপিয়ায় এ বৈঠক অনুষ্ঠিত হচ্ছে।

তবে মধ্যস্থতাকারীরা একদিনের এ বৈঠক থেকে তাৎক্ষণিক কোনো ফলাফল আশা করছেন না। গত ডিসেম্বরে শুরু হওয়া গৃহযুদ্ধে দক্ষিণ সুদানের হাজার হাজার মানুষ নিহত ও অন্তত ১০ লাখ মানুষ গৃহহীন হয়েছেন।

জাতিসংঘ দেশটিতে সংঘর্ষরত দু’পক্ষকেই মানবতাবিরোধী অপরাধের জন্য দায়ী করেছে। এসব অপরাধের মধ্যে রয়েছে গণগত্যা, গণধর্ষণ ও নারীদের আটকে রেখে যৌনদাসী হিসেবে ব্যবহার।

জাতিসংঘ গতকাল (বৃহস্পতিবার) এক প্রতিবেদন প্রকাশ করে বলেছে, এসব অপরাধে জড়িত ব্যক্তিদের শাস্তি নিশ্চিত করতে হবে। প্রতিবেদনে বলা হয়, বাড়িতে বাড়িতে, হাসপাতালে, মসজিদে, গির্জায় এমনকি জাতিসংঘের আশ্রয় শিবিরেও ‘ব্যাপকভিত্তিক ও নিয়মতান্ত্রিক’ পাশবিকতা চালানো হয়েছে। জাতিসংঘের প্রতিবেদনে বলা হয়, অবিলম্বে দক্ষিণ সুদানের প্রায় পাঁচ লাখ মানুষের জন্য সহায়তা প্রয়োজন।

সুদানের সঙ্গে কয়েক দশক ধরে সংঘর্ষের পর ২০১১ সালে পাশ্চাত্যের সমর্থনে আলাদা হয়ে যায় খ্রিস্টান অধ্যুষিত দক্ষিণ সুদান। এরপর নবগঠিত দেশটির প্রেসিডেন্ট সালভা কির তার সরকারের বিরুদ্ধে অভ্যুত্থান প্রচেষ্টার দায়ে অভিযুক্ত করে ভাইস প্রেসিডেন্ট রিয়েক মাচারকে সরিয়ে দেন। মাচার তার বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগ প্রত্যাখ্যান করে বিদ্রোহী সেনাবাহিনী গঠন করে কির সরকারের বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণা করেন।

(132)