নজরুলসহ ৫ জনের লাশ শনাক্ত


nasikনারায়ণগঞ্জ:নারায়ণঞ্জের শীতলক্ষ্যা নদীতে একে একে পাওয়া গেলে নারায়ণগঞ্জের কাউন্সিলির নজরুল ইসলামসহ মোট ছয়টি মরদেহ।এর মধ্যে চার জনের পরিচয় পাওয়া গেছে।দুই জনের পরিচয় এখনো পাওয়া যায়নি।বাকি যে তিন জনের পরিচয় পাওয়া গেছে তারা হচ্ছেন এডভোকেট চন্দন সরকারের ড্রাইভার ইব্রাহীম ও নজরুলের সহযোগী মনিরুজ্জামান স্বপন ও তাজুল ইসলাম।তাদের আত্মীয় স্বজনরা লাশগুলো শনাক্ত করেন।
নজরুল ইসলামের লাশটি তার স্ত্রী, ভাই আবদুস সালামসহ স্বজনরা শনাক্ত করেছেন।লাশগুলো দেখে মনে হয়েছে যে প্রতিটি হত্যার ধরণ একই রকম। পুলিশের সদস্যরা ট্রলার নিয়ে নদীতে লাশ খুঁজে খুঁজে বার করছেন।প্রতিটি লাশই বিকৃত হয়ে গেছে। লাশগুলো ফুলে গেছে। সন্ধ্যার পর ময়নাতদন্তের জন্য লাশগুলো নারায়ণগঞ্জের হাসপাতালে নেয়া হয়। লাশের গন্ধে গোটা এলাকার বাতাস ভারি হয়ে উঠেছে।লাশ পাওয়ার খবর ছড়িয়ে পড়লে ঢাকা-চট্টগ্রাম ও ঢাকা-সিলেট মহাসড়ক অবরোধ করে রেখেছে হাজার হাজার লোক। এর ফলে রাস্তার দুই পাশে শত শত গাড়ি আটকা পড়েছে।
একই দিন মোট সাতজন নিখোঁজ হলেও বিকাল ছয়টা পর্যন্ত মোট ছয় জনের লাশ পাওয়া যায়। নিখোঁজদের স্বজনরা শীতলক্ষ্যার তীরে লাশ খুঁজে ফিরছেন। শীতলক্ষ্যার তীরে দুপুর থেকেই কান্নার রোল পড়ে গেছে। খবর শুনে হাজার হাজার লোক শীতলক্ষ্যার তীরে জড়ো হয়েছেন।প্রতিটি মরদেহ ১৫ থেকে ২০টি ইট এক সঙ্গে বেঁধে নদীতে ফেলা হয়।তবে এক পর্যায়ে প্রতিটি লাশই ভেসে ‍ওঠে। আর ভেসে ওঠার পরই এগুলো শনাক্ত করা হয়।প্রতিটি লাশের হাত-পা বাঁধা ছিল।নজরুল ইসলাম ছাড়াও আরো তিন জনের নাম পরিচয় পাওয়া গেছে।
তারা হচ্ছেন মনিরুজ্জামান স্বপন ও তাজুল ইসলাম এবং এডভোকেট চন্দন কুমার সরকারের ড্রাইভার ইব্রাহীম। আরো দুটি লাশের পরিচয় সন্ধ্যা সাতটা পর্যন্ত পাওয়া যায়নি।বুধবার দুপুরে বন্দর উপজেলার গলাগাছিয়া ইউনিয়ন এলাকায় শীতলক্ষ্যা নদীতে একে একে ছয়টি লাশ ভেসে ওঠে। তবে একটু সময় নিলেও প্রতিটি লাশের পরিচয়ই পাওয়া যাচ্ছে ধীরে ধীরে।
বন্দর থানার ওসি আক্তার মোরশেদ বলেন, “প্রতিটি লাশের হাত-পা বাঁধা ছিল। লাশের সঙ্গে দুটি করে বস্তাও বাঁধা পাওয়া যায়। প্রতিটি বস্তার মধ্যে ১০-১২টি ইট ছিল। লাশ যেন ভেসে উঠতে না পারে সেজন্য দুর্বৃত্তরা এ অবস্থা করেছে বলে ধারণা করা হচ্ছে।”

তিনি বলেন, “নজরুল ইসলামের লাশ উদ্ধারের পর দেখা গেছে তার পেট কাটা।”

গত রোববার দুপুরে নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের ২নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর, প্যানেল মেয়র-২ ও আওয়ামী লীগ সমর্থক নজরুল ইসলাম ও তার ৪ সহযোগীকে তাদের বহনকারী প্রাইভেটকারসহ অপহরণ করে দুর্বৃত্তরা।

একই সময়ে নারায়ণগঞ্জের জ্যেষ্ঠ আইনজীবী চন্দন কুমার সরকার ও তার গাড়িচালক ইব্রাহিমও নিখোঁজ হন।

এরআগে ১৬ এপ্রিল পরিবেশ আন্দোলনের সংগঠক সৈয়দা রিজওয়ানা হাসানের স্বামী আবু বকর সিদ্দিক নারায়ণগঞ্জ থেকে অপহৃত হন। অপহরণের প্রায় ৩৫ ঘণ্টা পর আবু বকর সিদ্দিককে ছেড়ে দেয় দুর্বত্তরা।

(134)