নরেন্দ্র মোদীকে খুনের চেষ্টা, প্রণবকে ভিএইচপির চিঠি


modi‘যখন-তখন মিশে যাচ্ছেন সমর্থকদের ভিড়ে। উৎসাহী জনতার সঙ্গে করমর্দন করছেন। ঠিক এই সুযোগটাই নিতে চাইছে জঙ্গিরা। যে কোনও মুহূর্তে তারা আত্মঘাতী হামলা চালাতে পারে নরেন্দ্র মোদীর ওপর। তাই তাকে দেওয়া হোক বর্ধিত নিরাপত্তা।’ এই মর্মে রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখোপাধ্যায়কে চিঠি লিখেছে বিশ্ব হিন্দু পরিষদ।

বিশ্ব হিন্দু পরিষদের তরফে অশোক সিঙ্ঘল লিখেছেন, ‘আপনাকে অনুরোধ, বিজেপি’র প্রধানমন্ত্রী পদপ্রার্থী নরেন্দ্র মোদীর নিশ্ছিদ্র নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে বলুন আপনার সরকার ও রাজ্য সরকারগুলোকে। সাধারণভাবে সারা দেশ এবং বিশেষভাবে সমর্থকরা তার ওপর যে কোনও সম্ভাব্য হামলা নিয়ে উদ্বিগ্ন।’

তিনি আরও লিখেছেন, ‘ইনটেলিজেন্স ব্যুরো চরম সতর্কতা জারি করে বলেছে, নরেন্দ্র মোদীর ওপর আত্মঘাতী হামলা ঘটতে পারে। প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী রাজীব গান্ধীর ওপর যে কায়দায় হামলা হয়েছিল, সেই একই কায়দায় তার ওপর হামলা হতে পারে। গোয়েন্দা রিপোর্টে বলা হয়েছে, গুজরাতের মুখ্যমন্ত্রীকে গুলি করা হবে না, বরং সমর্থকের ছদ্মবেশে একজন আত্মঘাতী জঙ্গি হামলা চালাতে পারে। এক্ষেত্রে হামলাকারী পুরুষ হবে না নারী, সেটা সতর্কতায় বলা হয়নি।’

তাদের দাবি, ইন্ডিয়ান মুজাহিদিন, পাকিস্তানের আইএসআই এবং দাউদ ইব্রাহিম যৌথভাবে চেষ্টা করছে নরেন্দ্র মোদীকে খুন করতে। বিশেষত কিছুদিন আগে নরেন্দ্র মোদী বলেছিলেন, ‘তিনি প্রধানমন্ত্রী হলে দাউদকে পাকড়াও করে ভারতে নিয়ে আসবেন।’ এরপর থেকেই নাকি দাউদ ইব্রাহিম উঠেপড়ে লেগেছে নরেন্দ্র মোদীকে খুন করতে।

বিজেপি কিছুদিন ধরেই দাবি করে আসছে, নরেন্দ্র মোদীকে এসপিজি কমান্ডো দেওয়া হোক। এখন তিনি জে-প্লাস নিরাপত্তা পান। এনএসজি এবং গুজরাত পুলিশের ৪৫ জন ব্ল্যাক ক্যাট কমান্ডো তাকে ঘিরে থাকেন অন্তর্বলয়ে। এ ছাড়া রয়েছে বহির্বলয়। এখানে কমান্ডো ছাড়াও সাদা পোশাকে থাকেন গোয়েন্দারা। কিন্তু এসপিজি কমান্ডোদের তুলনায় এই নিরাপত্তা কম বলেই দাবি বিজেপি’র।

কেন্দ্রীয় সরকার এই দাবি খারিজ করে দিয়েছে এই যুক্তিতে যে, আইন অনুযায়ী রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী ও প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রীরা এসপিজি কমান্ডো পেতে পারেন। এর আওতায় আসছেন না নরেন্দ্র মোদী।

(147)