নির্বাচন কমিশনের সঙ্গে সরাসরি সংঘাতে বিজেপি


image_81953.modi-

বিজেপির প্রধানমন্ত্রী পদপ্রার্থী নরেন্দ্র মোদিকে বারাণসীতে জনসভা করার অনুমতি না দেয়ায়, নির্বাচন কমিশনের সঙ্গে সরাসরি সংঘাতে জড়িয়ে পড়েছে দলটি। কমিশনের বিরুদ্ধে এনেছে পক্ষপাতিত্বের অভিযোগ, চলছে প্রতিবাদ বিক্ষোভও।

১২ই মে ২০১৪ সালের সাধারণ নির্বাচনের নবম ও শেষ পর্বে ৪১টি আসনে ভোটের আগে গোটা দেশের ‘পাখির চোখ’ এখন উত্তর প্রদেশের পবিত্র পূণ্যভূমি গঙ্গা তীরবর্তী বারাণসী সংসদীয় আসন৷ প্রতীকী অর্থে ‘গ্রাউন্ড জিরো। কারণ বারাণসীতে মোদীর জনসভা বিতর্কের কেন্দ্রবিন্দু।

৮ই মে বারাণসীর দুটি জায়গায় জনসভা করার কথা ছিল ভারতীয় জনতা পার্টি বা বিজেপির প্রধানমন্ত্রী পদপ্রার্থী নরেন্দ্র মোদীর৷ কিন্তু নির্বাচন কমিশন মুসলিম প্রধান এলাকা বেনিয়াবাগ ময়দানে জনসভা করার অনুমতি না দেয়ায় ভোট প্রচারের উত্তাপ মোড় নিয়েছে অন্যদিকে৷ বিজেপির শীর্ষ নেতৃত্ব এই সিদ্ধান্তের জন্য নির্বাচন কমিশনের বিরুদ্ধে তুলেছে পক্ষপাতিত্বের অভিযোগ। প্রতিবাদ বিক্ষোভে ফেটে পড়েছে বিজেপির নেতাকর্মীরা। বেনারস হিন্দু বিশ্ববিদ্যালয়ের গেটের সামনে ধর্ণায় বসেন শীর্ষ নেতা অরুণ জেটলি, বিজেপির উত্তর প্রদেশের ভারপ্রাপ্ত অমিত শাহ এবং অনন্ত কুমার প্রমুখ। বলেছেন, কোনো প্রার্থীকে নিজের নির্বাচন কেন্দ্রে প্রচার করার অনুমতি না দেয়াটা অবাধ ও শান্তিপূ্ণ নির্বাচনের পরিপন্থি। দাবি জানিয়েছেন অবিলম্বে বারাণসীর রিটার্নিং অফিসারের অপসারণের৷ দিল্লিতেও অনুরূপ ধর্ণায় বসেন দলের শীর্ষ নেতা রবিশঙ্কর প্রসাদ, ভেঙ্কাইয়া নাইডু প্রমুখ। পরে তাঁরা একটি প্রতিবাদলিপি দেন মুখ্য নির্বাচন কমিশনারকে৷ বিজেপি বৃহস্পতিবার দুটি জায়গায় জনসভা করার অনুমতি চেয়েছিল। একটি রোহানিয়ার জগত ইন্টার কলেজ ময়দানে এবং অন্যটি মুসলিম প্রধান এলাকা বেনিয়াবাগ ময়দানে৷ নির্বাচন কমিশন শান্তি ও নিরাপত্তা বিঘ্নিত হবার আশঙ্কায় বেনিয়াবাগে জনসভা করার অনুমতি দেননি।

 বারাণসী আসনে ত্রিমুখী প্রতিদ্বন্দ্বিতায় লড়ছেন ভারতীয় জনতা পার্টি বিজেপির প্রধানমন্ত্রী পদপ্রার্থী নরেন্দ্র মোদী, দিল্লির প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী আম আদমি পার্টির প্রধান অরবিন্দ কেজরিওয়াল এবং কংগ্রেসের অজয় রাই। কংগ্রেস প্রার্থী ওজনদার না হওয়ায় লড়াইটা হবে মূলত মোদী বনাম কেজরিওয়ালের মধ্যে৷জনসভার অনুমতি বিতর্কে মুখ খুলে আম আদমি পার্টির প্রধান মনে করেন, ‘এতে উতলা হবার কী আছে? পরিস্থিতি খতিয়ে দেখে জেলা প্রশাসনের সুপারিশের ভিত্তিতে প্রয়োজনীয় সিদ্ধান্ত নেবার অধিকার আছে রিটারনিং অফিসারের আছে৷ গঙ্গাঘাটে আরতি করে আমার সঙ্গে বিতর্কে যোগ দিন, কে বারণ করেছে?’ নির্বাচন কমিশনের সিদ্ধান্তের রাজনৈতিক ব্যাখা দিতে নেমে পড়েছে অন্য দলগুলি৷ কারো কারো অভিযোগ, উত্তর প্রদেশের শাসকদল সমাজবাদী পার্টির ইসারাতে এবং জেলা প্রশাসনের চাপে রিটার্নিং অফিসারকে এই বিতর্কিত সিদ্ধান্ত নিতে হয়েছে যাতে মুসলিম ভোট যেন মোদীর ঝুলিতে না যায়। বারাণসী আসন মোদীর জন্য কতটা জরুরি? গুজরাটের বদোদরা আসনে মোদীর বিপুল ভোটে জয়লাভের সম্ভাবনা রয়েছে এমনটাই মনে করছেন ভোট বিশ্লেষকরা৷ কিন্তু বারাণসী আসনে জিতে মোদী প্রমাণ করতে চান হিন্দি বলয়ে প্রধানমন্ত্রী হিসেবে তাঁর জনপ্রিয়তা কম নয়।

বারাণসী বা বেনারস কিংবা কাশী উত্তর প্রদেশ রাজ্যে গঙ্গা তীরের বহু প্রাচীন এক হিন্দু তীর্থভূমি। শুধু হিন্দুদের নয়, জৈন ও বৌদ্ধ ধর্মের প্রসারে বড় ভূমিকা রয়েছে এই শহরের। হিন্দুদের বিশ্বাস এখানে মৃত্যু হলে তাঁর স্বর্গলাভ হয়। বারাণসী শুধু মন্দির শহর নয়, সাংস্কৃতিক সাধনার পীঠস্থানও বটে। দ্বাদশ শতাব্দীতে মহ: ঘোরী শহরের বহু মন্দির লুঠ করেছিলেন।

নিরাপত্তার দিক থেকে স্পর্শকাতর শহর বারাণসী যেন এক সেনা ছাউনির চেহারা নিয়েছে। প্রতিটি অলিগলিতে যৌথ বাহিনী টহল দিচ্ছে। রাস্তায় রাস্তায় ব্যারিকেড। প্রশাসন কোনোরকম ঝুঁকি নিতে রাজি নয়।

(169)