বাড়িভাড়ার টাকা ব্যাংকের মাধ্যমে পরিশোধ করতে হবে


 

nbrপাচার ঠেকাতে ‘অপ্রদর্শিত অর্থ’ বা কালো টাকা বিনিয়োগের সুযোগ দেয়া যেতে পারে বলে মনে করেন জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) চেয়ারম্যান গোলাম হোসেন।

বুধবার ইকোনমিক রিপোর্টার্স ফোরামের (ইআরএফ) সাথে এক প্রাকবাজেট আলোচনায় তিনি বলেন, ‘কানাডা, সিঙ্গাপুরের সরকার ওইসব দেশে বিদেশি নাগরিকদের অপ্রদর্শিত অর্থ বিনিয়োগের সুযোগ করে দিয়েছেন। সরকারিভাবে সেখানে নানা কর্মসূচি নেয়া হয়েছে, যেখানে যে কেউ অর্থ বিনিয়োগ করতে পারে। এক্ষেত্রে অর্থের উৎস সম্পর্কে কোনো প্রশ্ন করা হয় না। বাংলাদেশের নাগরিকরাও এই সুযোগ নিচ্ছেন।’

তিনি বলেন, বাংলাদেশে এ ধরনের সুযোগ না দিলে অর্থ পাচার হতে থাকবে। এ পাচার ঠেকাতে দেশের স্বার্থে ‘অপ্রদর্শিত অর্থ’ বিনিয়োগের সুযোগ দেয়া উচিত বলে তিনি মন্তব্য করেন।

ইআরএফ সভাপতি সুলতান মাহমুদ বাদলের সঞ্চালনায় এনবিআর সদস্য সৈয়দ আমিনুল করিম, এম ফরিদউদ্দিন, ইআরএফ সাধারণ সম্পাদক সাজ্জাদুর রহমান প্রমুখ বক্তব্য দেন।

রাজস্ব আয় বাড়াতে বাড়ি ভাড়ার টাকা ব্যাংকের মাধ্যমে পরিশোধ করার চিন্তাভবাবনা করা হচ্ছে জানিয়ে গোলাম হোসেন বলেন, ‘এতে ব্যাংক থেকে সরাসরি করের টাকা কেটে রাখা যাবে। আগামীতে আমরা এই পদ্ধতি চালু করতে চাই। এ লক্ষে কাজ করা হচ্ছে।’

তিনি জানান, সারাদেশে এক লাখ ৬২ হাজার বাড়িওয়ালাকে চিহ্নিত করা হয়েছে, যাদের কোনো টিআইএন নম্বর নেই। এসব বাড়িওয়ালাকে করের আওতায় আনার জন্য আমরা কাজ করছি।

এক প্রশ্নের উত্তরে গোলাম হোসেন বলেন, সংশোধিত লক্ষ্যমাত্রা অনুযায়ী মার্চ পর্যন্ত রাজস্ব আয়ে ঘাটতি রয়েছে ৫ হাজার কোটি টাকা। বছরের আরো তিনমাস বাকি রয়েছে। রাজস্ব আয়ের জন্য এই তিন মাস অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। বছরশেষে লক্ষ্যমাত্রা অনুযায়ী রাজস্ব আয় হবে বলে তিনি আশা প্রকাশ করেন।

আগামী বাজেটে কর্পোরেট কর কমানোর ইঙ্গিত দেন এনবিআর চেয়ারম্যান। কর্পোরেট ও আয়করের মধ্যে কীভাবে সমন্বয় করা যায়, এ নিয়ে কাজ করা হচ্ছে বলে তিনি জানান।

গোলাম হোসেন বলেন, আগামী অর্থবছর রাজস্ব আয়ের লক্ষ্যমাত্রা ঠিক করা হয়েছে এক লাখ ৪৯ হাজার কোটি টাকা। পাঁচ বছর পর এর পরিমাণ দ্বিগুণ হবে। তিনি বলেন, আমাদের মধ্যম আয়ের দেশে পৌঁছাতে হলে এই লক্ষ্যমাত্রা অনুযায়ী রাজস্ব আয় বাড়ানোর বিকল্প নেই।

করনীতির মাধ্যমে ঢাকা শহরকে দুষণমুক্ত করার চিন্তাভাবনা করা হচ্ছে জানিয়ে তিনি বলেন, এনবিআর করনীতি দিয়ে ঢাকা শহর বাঁচানোর জন্য কিছু করতে পারে কি-না, এ নিয়ে চিন্তাভাবনা করছে। ঢাকা শহরের মধ্যে শিল্প স্থাপন করলে, এক রকম করহার, বাইরে করলে ভিন্ন ধরনের করহার হবে।

জমি বিক্রির প্রকৃত মূল্যহারে কর পাওয়া যাচ্ছে না-স্বীকার করে এনবিআর চেয়ারম্যান বলেন, জমির প্রকৃত মূল্যহারে কর প্রাপ্তি নিশ্চিত করতে সরকারের উচ্চ পর্যায় থেকে আমাদের নির্দেশ দেয়া হয়েছে। এ নিয়ে আমরা কাজও শুরু করেছি। রাজউকের মূল্যের বাইরে আমরা করের উদ্দেশ্য ঢাকার জমির মূল্য নির্ধারণ করবো। এই মূল্যের ওপর ভিত্তি করে করারোপ করা হবে।

(208)