২২৬ এমপি কোটিপতি, কর দেন না শতকরা ৪২ জন


 

sujonদশম জাতীয় সংসদের ৩৫০ জন সংসদ সদস্যের মধ্যে ২২৬ জনের (৬৪. ৫৭ শতাংশ) কোটি টাকার উপরে সম্পত্তি রয়েছে বলে জানিয়েছেন সুশাসনের জন্য নাগরিক (সুজন)। এছাড়া বর্তমান সংসদের এমপিদের মধ্যে শতকরা ৪২ জন সরকারকে কোনো আয়কর দেন না।

রোববার ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির সাগর রুনি মিলনায়তনে ‘দশম জাতীয় সংসদের  সংসদ সদস্যগণের তথ্য উপস্থাপন’ শীর্ষক সংবাদ সম্মেলনে সুশাসনের জন্য নাগরিকের (সুজন) কেন্দ্রীয় প্রধান সমন্বয়কারী দিলীপ কুমার সরকার এ তথ্য তুলে ধরেন। সেখানে সুজনের সম্পাদক বদিউল আলম মজুমদার, সাবেক কেবিনেট সচিব আলী ইমাম মজুমদার, স্থানীয় সরকার বিশেষজ্ঞ তোফায়েল আহমেদ উপস্থিত ছিলেন।

সংবাদ সম্মেলনে বক্তারা বলেন, “সরকারি ও সাবেক বিরোধী দলসহ সব রাজনৈতিক দল নাগরিক সংগঠন ও সচেতন নাগরিক সমাজকে চলমান সংকট নিরসনে আন্তরিকতার সঙ্গে এগিয়ে আসতে হবে। সব দলের অংশগ্রহণে একটি প্রতিযোগিতামূলক নির্বাচন অনুষ্ঠানের জন্য কাজ করতে হবে।”

কারণ হিসেবে বক্তারা বলেন, “৫ জানুয়ারির নির্বাচনে জনগণের সম্পূর্ণ মতামতের প্রতিফলন ঘটেনি। ওই নির্বাচনে জনগণের আগ্রহ ছিল না। এজন্য তারা ভোট দিতে কেন্দ্রে যায়নি। তাই জনগণের সম্মতি পেতে হলে নির্বাচন কমিশনকে পুনর্গঠন করে দ্রুততম সময়ের মধ্যে একটি সুষ্ঠু ও গ্রহণযোগ্য নির্বাচন দিতে হবে।”

সুজন জানায়, ক্ষমতাসীন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের ২৭৩ জন সংসদ সদস্যের মধ্যে ১৯৪ জন  বা ৭১ দশমিক ০৬ শতাংশ এমপিই কোটিপতি। বিরোধী দল জাতীয় পার্টির ৪০ জন এমপির মধ্যে ১৮ জন বা ৪৫ শতাংশের মোট সম্পত্তির পরিমাণ কোটি টাকার বেশি।

মহাজোট সরকারের শরিক বাংলাদেশ ওয়ার্কার্স পার্টিরও কোটিপতি সংসদ সদস্য রয়েছে। এ দলটির সাতজন এমপির মধ্যে একজনের সম্পত্তি এক কোটি টাকার বেশি।  জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দলের (জাসদ) রয়েছেন একজন ‘কোটিপতি’ এমপি। দশম জাতীয় সংসদে এ দলের রয়েছেন ছয়জন সংসদ সদস্য।

সুজনের হিসাবে কোটিপতি এমপির তালিকায় এগিয়ে রয়েছে তরিকত ফেডারেশন। এ দলের শত ভাগ এমপিই ‘কোটিপতি’। এ দলের এমপির সংখ্যা দুই।  এছাড়া জাতীয় পার্টির (জেপি) ৫০ শতাংশ ও ১৬ জন স্বতন্ত্র এমপির আট জন ‘কোটিপতি’ বলে দাবি করেছে সুজন।

সুজনের দেয়া তথ্যে আরো রয়েছে, জাতীয় সংসদে ৩৫০ জন এমপির মধ্যে ৫০ শতাংশই হলেন ব্যবসায়ী। তারা সংখ্যায় ১৭৫ জন। আর আইনজীবীর সংখ্যা মাত্র ৫১ জন। অর্থাৎ আইনজীবীর চেয়ে তিন গুণেরও বেশি রয়েছেন ব্যবসায়ী।

শিক্ষাগত যোগ্যতায় দেখা গেছে, ১২৮ জন সংসদ সদস্যের (৩৬.৫৭ শতাংশ) স্নাতকোত্তর ডিগ্রি রয়েছে। স্নাতক ডিগ্রি রয়েছে ১৪৭ জনের (৪২ শতাংশ)। আর ১৫ জনের (৪.২৮শতাংশ) শিক্ষাগত যোগ্যতা মাধ্যমিকের নিচে।

(136)